ট্যাগ আর্কাইভঃ আন্তর্জাতিক জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী দিবস

আন্তর্জাতিক জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী দিবস পালন

President-min-1ঢাকা, ২৯ মে ২০১৬: আন্তর্জাতিক জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনী বিভাগ ও জাতিসংঘের আবাসিক সমন্বয়কারীর কার্যালয় যৌথভাবে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে  এক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। এতে বাংলাদেশের মহামান্য রাষ্ট্রপতি জনাব আবদুল হামিদ প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন এবং শান্তি ও মানবতা রক্ষায় যে সকল শান্তিরক্ষী জীবন দান করেছেন তাদের পরিবারের সদস্য ও আহত শান্তিরক্ষীদের হাতে ক্রেস্ট তুলে দেন। জাতিসংঘের আবাসিক সমন্বয়কারী রবার্ট ওয়াটকিন্স তার সুচনা বক্তব্যে শান্তিরক্ষী মিশনের কর্মকাণ্ড ও বাংলাদেশী শান্তিরক্ষীদের অবদানের প্রশংসা করেন। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন মাননীয় পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী জনাব শাহরিয়ার আলম,এমপি। অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন তিন বাহিনীর  প্রধানগণ, ভারপ্রাপ্ত পররাষ্ট্র সচিব, পুলিশ প্রধান এবং উচ্চ পদস্থ সামরিক কর্মকর্তাবৃন্দ। মন্ত্রী, এমপি, সামরিক কর্মকর্তা, পুলিশ, বেসামরিক কর্মকর্তা, শিক্ষাবিদ, সুশীল সমাজের প্রতিনিধি, জাতিসংঘ কর্মকর্তা ও বিভিন্ন দেশের কূটনৈতিকবৃন্দসহ ১৫০০ অতিথি অনুষ্ঠানটিতে অংশ নেয় । এছাড়া একই দিন সকালে সশস্ত্র বাহিনী, পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়  ও জাতিসংঘ সংস্থার কর্মকর্তাদের অংশগ্রহণে এক পিস রান অনুষ্ঠিত হয়, এতে প্রধান অতিথি ছিলেন বক্তব্য রাখেন পররাষ্ট্র  প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম,এমপি এবং বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জাতিসংঘের ভারপ্রাপ্ত আবাসিক সমন্বয়কারী আর্জেন্টিনা মাটাভেল পিচিন । বাংলাদেশ টেলিভিশনসহ বেসরকারি টিভি চ্যানেলগুলো দিবসটি উপলক্ষে বিশেষ আলোচনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করে এবং পত্রিকাগুলো বিশেষ ক্রোড়পত্র প্রকাশ করে।

আন্তর্জাতিক জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশে জাতিসংঘের আবাসিক সমন্বয়কারী রবার্ট ডি ওয়াটকিন্স-এর বানী – ২৯ মে ২০১৬

bang + eng-01(1)

আন্তর্জাতিক জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী দিবস উপলক্ষে জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি-মুন এর বানী – ২৯ মে ২০১৬

01-01

আন্তর্জাতিক জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী দিবস উপলক্ষ্যে জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি-মুনের বানী

banner_peacekeeping

এ বছর আন্তর্জাতিক জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী দিবস পালিত হচ্ছে জাতিসংঘের ৭০তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে, যা সংস্হাটির ইতিহাসে নীল হেলমেটধারীদের অমূল্য অবদানকে সম্মান জানানোর এক সুযোগ এনে দিয়েছে। জাতিসংঘ সনদের লক্ষ্য “আন্তর্জাতিক শান্তি ও নিরাপত্তা রক্ষায় আমাদের শক্তির সম্মিলন” এটিতে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রম প্রাণের সঞ্চার ঘটিয়েছে। অনেক বছরের লড়াই ও ত্যাগ সাধনের পর মূর্তিমান নীল হেলমেট যুদ্ধবিদ্ধস্থ দেশগুলোতে বসবাসকারী লক্ষ লক্ষ মানুষের আশার প্রতীকে পরিণত হয়েছে।

জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রম আলোচনার মাধ্যমে সমস্যার সমাধানে উৎসাহ জোগায়, যা ঝুকি ও সুযোগগুলোকে উন্নত ও উন্নয়নশীল বিশ্বের ছোট ও বড় দেশসমূহে ছড়িয়ে দেয়। আমি সৈন্য ও পুলিশ প্রেরণকারী ১২২ টি দেশের এক লক্ষ সাত হাজার-এর অধিক পোষাকধারী শান্তিরক্ষীর উচ্ছ্বসিত প্রশাংসা করছি, যারা বর্তমানে ১৬ টি মিশনে কর্মরত রয়েছে।

জাতিসংঘ গত ৭০ বছরে ৭১ টি শান্তিরক্ষা কার্যক্রম প্রতিষ্ঠা করেছে। দেশসমূহের স্বাধীনতা প্রাপ্তিতে সাহায্য, ঐতিহাসিক নির্বাচনে সহায়তা, জনগণকে সুরক্ষা, লক্ষ লক্ষ প্রাক্তন যোদ্ধাকে নিরস্ত্রকরণ, আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা, মাবাধিকারের উন্নয়ন সাধন ও শরনার্থীদের জন্য অনুকূল পরিবেশ তৈরী এবং বাস্তুচ্যুত লোকদের গৃহে প্রত্যাবর্তনে সহায়তায় দশ লক্ষের অধিক লোক শান্তিরক্ষী হিসাবে সেবা প্রদান করেছেন। এ সমস্ত কর্ম সার্থকভাবে সম্পাদিত হওয়ায় আমাদের সকলের গর্বিত হওয়া উচিত। বিস্তারিত পড়ুন