বিভাগের আর্কাইভঃ প্রেস রিলিজ

জাতিসংঘ দিবস উপলক্ষ্যে সিম্পোজিয়াম আয়োজিত

rc-ai  ২৯ অক্টোবর, ২০১৬: জাতিসংঘ দিবস উদযাপন উপলক্ষ্যে বাংলাদেশ জাতিসংঘ সমিতি সিরডাপ মিলনায়তনে ২৯ অক্টোবর এক সিম্পোজিয়ামের আয়োজন করে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত পররাষ্ট্র সচিব (দ্বিপক্ষীয় ও কনস্যুলার) জনাব কামরুল আহসান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির আসন অলংকৃত করেন এবং বাংলাদেশে জাতিসংঘের ভারপ্রাপ্ত আবাসিক সমন্বয়কারী আর্জেন্টিনা মাটাভেল পিচিন সম্মানিত অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন। এতে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপনা করেন  ইতিহাসবিদ অধ্যাপক সৈয়দ আনোয়ার হোসেন এবং সভাপতিত্ব করেন জাতিসংঘ সমিতির সভাপতি বিচারপতি কাজী এবাদুল হক । জাতিসংঘ তথ্য কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ মনিরুজ্জামান, জাতিসংঘের মহাসচিবের বাণী পাঠ করেন এবং এটি অংশগ্রহণকারীদের মাঝে বিতরণ করা হয়। সেমিনারে আরও উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের মাননীয় সাবেক স্পিকার কর্নেল(অব.) শওকত আলী এমপি। সরকারি কর্মকর্তা, সুশীল সমাজ ও এনজিও প্রতিনিথি, যুব প্রতিনিধি ও শিক্ষাবিদ সম্মেলনে অংশগ্রহণ করেন। সেমিনারের বক্তাবৃন্দ জাতিসংঘের ইতিহাসের উপর আলোক পাত করেন এবং সংশ্লিষ্ট সবাইকে শান্তি ও উন্নয়ন প্রক্রিয়া নিশ্চিতকরণে এগিয়ে আসা, পাশাপাশি ২০৩০ এজেন্ডা অর্থাৎ টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) বাস্তবায়নে সহযোগিতায় আহ্ববান জানান । বাংলাদেশ জাতিসংঘ সমিতির মহাসচিব অধ্যাপক সৈয়দ মোহাম্মদ শাহেদ অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন।

বাংলাদেশে জাতিসংঘ দিবস পালন – পত্রিকা ক্রোড়পত্র, ২৪ অক্টোবর ২০১৬

14711472_1239418022787132_6068649651765503294_o

জাতিসংঘ দিবস উপলক্ষ্যে জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি-মুন-এর বানী, ২৪শে অক্টোবর ২০১৬

featured-image-messages     এ বছরের জাতিসংঘ দিবসটি বিশ্ব এবং জাতিসংঘের সন্ধিক্ষণের একটি পর্যায়ে পালিত হচ্ছে।

২০৩০ সাল নাগাদ টেকসই উন্নয়নের মহান অঙ্গীকার পূরণের প্রতিশ্রুতিসহ মানবতা টেকসই যুগে প্রবেশ করেছে। সংস্থাটির ৭১তম বছরে, একটি সুস্থ গ্রহে সবার জন্য উন্নততর ভবিষ্যত গড়ার লক্ষ্যে নিজেদের গতিশীল করতে আমাদের রয়েছে ১৭টি লক্ষ্যমাত্রা।

জীবাশ্ম জ্বালানি দাহনই সমৃদ্ধির পথ, দীর্ঘদিন পর বিশ্ব এই মনোভাব থেকে বেরিয়ে আসছে। রেকর্ড উষ্ণতার একটি সময়ে সদস্য রাষ্ট্রগুলো রেকর্ড সময়ের ভিতরে জলবায়ু পরিবর্তনের প্যারিস চুক্তি গ্রহণ করেছে। এই ঐতিহাসিক পদক্ষেপটি আগামী ৪ঠা নভেম্বর কার্যকর হবে। সবুজতর, অধিকতর পরিষ্কার, কম কার্বন নিঃসরণের শ্রেষ্ঠ সম্ভাবনা নিহিত রয়েছে এই ঐতিহাসিক সীমারেখায়। বিস্তারিত পড়ুন

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে অনুষ্ঠিত হলো মডেল জাতিসংঘ সম্মেলন ২০১৬

untitled-1  রাজশাহী, বৃহস্পতিবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৬: জাতিসংঘ তথ্য কেন্দ্রের সহযোগিতায় বাংলাদেশ জাতিসংঘ যুব ও ছাত্র সমিতি গত ২৯ সেপ্টেম্বর  থেকে ০২অক্টোবর  পর্যন্ত রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে চার দিনব্যাপী “ইউনিস্যাব মডেল জাতিসংঘ সম্মেলন ২০১৬” আয়োজন করে। বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে তিন শতাধিক প্রতিনিধি এই মডেল সম্মেলনে অংশ নেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের  সহযোগী অধ্যাপক ও ছাত্র উপদেষ্টা মোঃ মিজানুর রহমান, জাতিসংঘ তথ্য কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ মনিরুজ্জামান এবং সাবেক ছাত্র উপদেষ্টা অধ্যাপক মোঃ সাদেকুল আরেফিন মাতিন বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য প্রদান করেন। ইউনিস্যাব সভাপতি মামুন মিয়া উদ্বোধনী পর্বে সভাপতিত্ব করেন। জাতিসংঘ তথ্য কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা  এসডিজি লক্ষ্য মাত্রা অর্জনে ও জাতি গঠনে তরুণ নেতাদের সংযুক্ত হওয়ার আহ্বান জানান। এই ছায়া জাতিসংঘ সম্মেলনের মূল প্রতিপাদ্য ছিল বিশ্ব সম্প্রদায়ের মাঝে অর্থনৈতিক ও পরিবেশগত সন্ধি। বিস্তারিত পড়ুন

আন্তর্জাতিক অহিংসা দিবস উপলক্ষে জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি-মুন এর বানী: ২ অক্টোবর ২০১৬

gunপ্রতি বছর আন্তর্জাতিক অহিংসা দিবসের এই দিনে আমরা শান্তির লক্ষ্যে আমাদের প্রতিশ্রুতি পুনঃব্যক্ত করি, যার ভিত্তি মহাত্মা গান্ধীর জীবনদর্শন, যিনি ১৪৭ বৎসর পূর্বে এই দিনে জন্মগ্রহণ করেছিলেন।

আমরা জানি যে, অহিংসার সংস্কৃতি অন্যের প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শনের মাধ্যমে শুরু হয়, যা সেখানেই থেমে থাকে না। শান্তিকে লালন করতে হলে আমাদের অবশ্যই প্রকৃতিকে শ্রদ্ধা জানাতে হবে। আমি আনন্দিত এ বছরের আন্তর্জাতিক অহিংসা দিবসে স্থিতিশীলতা ও পরিবেশের উপর আলোকপাত করা হয়েছে।

গান্ধী তাঁর প্রতিটি কাজে সকল জীবিত বস্তুর প্রতি আমাদের দায়বদ্ধতাকে সন্মান দেখিয়েছেন। তিনি আমাদের স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন যে “ধরিত্রী প্রতিটি লোকের প্রয়োজন মেটাতে যথেষ্ট দিয়েছে, কিন্তু লোভ মেটাতে নয়”। এছাড়া আমরা পৃথিবীর যেরকম পরিবর্তন দেখতে চাই তা করার  চ্যালেঞ্জ গান্ধী আমাদের সামনে রেখেছে।

বিস্তারিত পড়ুন

বিশ্ব মানবতা দিবস উপলক্ষ্যে জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি-মুন এর বানী, ১৯ আগস্ট ২০১৬

featured-image-sgmessageআজ রেকর্ড পরিমাণ ১৩ কোটি মানুষ বেঁচে থাকার জন্য মানবিক সহায়তার ওপর নির্ভরশীল। এই সাহায্য প্রার্থী মানুষদের এক সঙ্গে দলবদ্ধ করা হলে পৃথিবীর দশম জনবহুল দেশ গঠিত হবে ।

এই সংখ্যাগুলো সত্যিই বিস্ময়কর, কিন্তু তা এই ঘটনার একটি ভগ্নাংশ মাত্র ।  এই পরিসংখ্যানের পিছনে লুকায়িত আছে ব্যক্তি, পরিবার ও সম্প্রদায় যাদের জীবন এখন  বিধ্বস্ত।  আপনার ও আমার প্রতি অভিন্ন মানুষ, যেমন  শিশু, নারী এবং পুরুষ তারা  প্রতিদিন অসম্ভব সিদ্ধান্তের মুখোমুখি হচ্ছে। এই মাতাপিতাগন তাদের সন্তানদের জন্য হয় খাদ্য অথবা ঔষধ কেনার সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হচ্ছেন।  এই ছেলেমেয়েরা হয় স্কুলে যাওয়া অথবা পরিবারকে সহায়তায় কাজে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হচ্ছে।  এই পরিবারগুলো হয় বোমাবর্ষণের ঝুঁকিসহ বাড়িতে অবস্থান করছেন অথবা বাধ্য হচ্ছেন বিপদজ্জনক ভাবে সমুদ্র পাড়ি দেয়ার সিদ্ধান্ত নিতে।

এই সংকট যা এই মানুষগুলোকে আশাহীন কষ্টে ফেলে দিয়েছে তা সমাধানের উপায় সহজ বা তড়িৎ নয়।   কিন্তু  কিছু জিনিষ আছে, যা আমরা সবাই আজ এবং প্রতিদিন করতে পারি । আমরা সমবেদনা দেখাতে পারি, আমরা অন্যায়ের বিরুদ্ধে সোচ্চার হতে পারি, এবং আমরা পরিবর্তনের জন্য কাজ করতে পারি। বিস্তারিত পড়ুন

আন্তর্জাতিক জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশে জাতিসংঘের আবাসিক সমন্বয়কারী রবার্ট ডি ওয়াটকিন্স-এর বানী – ২৯ মে ২০১৬

bang + eng-01(1)

আন্তর্জাতিক জাতিসংঘ শান্তিরক্ষী দিবস উপলক্ষে জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি-মুন এর বানী – ২৯ মে ২০১৬

01-01

বিশ্ব অটিজম সচেতনতা দিবস উপলক্ষ্যে জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি-মুন এর বাণী, ২ এপ্রিল ২০১৬

Participants at the UN General Assembly special event on the occasion of World Autism Awareness Day: ‘Autism and the 2030 Agenda: Inclusion and Neurodiversity.’ UN Photo/Rick Bajornas২০৩০ সাল নাগাদ টেকসই উন্নয়ন এজেন্ডা অর্জনের উচ্চাভিলাষী ও সর্বজনীন চ্যালেঞ্জ অনুধাবনে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় এখন যাত্রা শুরু করছে। টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার আলোকে একটি অন্তর্ভুক্তিমূলক সমাজ গঠনে অটিজম আক্রান্ত ব্যাক্তিদের সমান অংশগ্রহণ ও কার্যকর সংশ্লিষ্টতা অপরিহার্য।

অটিজম একটি আজীবন পরিস্থিতি, যার শিকার বিশ্বের লক্ষ্য লক্ষ্য মানুষ। অনেক দেশেই এটি সম্পর্কে পরিষ্কার ধারণা নেই এবং অধিকাংশ সমাজই অটিজম আক্রান্ত ব্যাক্তিদের এড়িয়ে চলে।

এটি একটি মানবাধিকার লঙ্ঘন ও মানব সম্ভাবনার অপচয়। আমি অটিজম আক্রান্ত ব্যাক্তিদের মধ্যে গতিশীলতা ও প্রতিশ্রুতি অবলোকন করেছি। এ বছরের শুরুতে নিউইয়কস্থ জাতিসংঘ সদর দফতরে এমন একজন যুবকের সাথে আমার কথা বলার সৌভাগ্য হয়েছিলো। কিভাবে আমরা টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করতে পারি সে ব্যাপারে তার অভিনব দৃষ্টিভঙ্গির কথা শুনে আমি সত্যিই অভিভূত হয়েছি।
বিস্তারিত পড়ুন

মানবাধিকার দিবসে বাংলাদেশে জাতিসংঘের আবাসিক সমন্বয়কারী রবার্ট ওয়াটকিন্স-এর নিবন্ধঃ আমাদের স্বাধীনতা – আমাদের অধিকার, চিরন্তনঃ মানবাধিকার দিবস ২০১৫

UNRC Photo১৯৪৮ সালের এই দিনে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে মানবাধিকারের সর্বজনীন ঘোষণাপত্র গৃহীত হয়। দিবসটি সব জাতির সকল মানুষের জন্য একটি মর্যাদাপূর্ণ সাধারণ মানদণ্ডের কথা স্মরণ করিয়ে দেয়। এ বছর আমরা মৌলিক স্বাধীনতা, যা মানবাধিকারকে তুলে ধরে এবং যা এখনও বাংলাদেশসহ সমগ্র বিশ্বে প্রাসঙ্গিক যেমন, ভয় ও দারিদ্র্যতা থেকে মুক্তি, বাক-স্বাধীনতা ও নিজ নিজ ধর্ম পালনের স্বাধীনতা, এ বিষয়গুলো স্মরণ করি। ২০১৫ সালের প্রতিপাদ্য ও শ্লোগান হলোঃ “আমাদের স্বাধীনতা – আমাদের অধিকার, চিরন্তন”।

বাংলাদেশ স্বতঃস্ফূর্তভাবে আটটি আন্তর্জাতিক মানবাধিকার চুক্তিতে অন্তর্ভুক্ত হয়েছে এবং এর ফলে দেশটি কোন প্রকার বৈষম্য ব্যতিরেকেই প্রতিটি ব্যক্তি ও জনগনের নাগরিক, সাংস্কৃতিক, অর্থনৈতিক, সামাজিক অথবা রাজনৈতিক অধিকার নিশ্চিত করতে অঙ্গিকারাবদ্ধ। অনেক বছর ধরেই বাংলাদেশ নারী ও কিশোরীদের প্রতি বৈষম্যের বিরুদ্ধে এবং শিশু অধিকার নিশ্চিত করার মত বিষয়গুলো নিয়ে জাতিসংঘের সাথে কাজ করে যাচ্ছে। ২০১৫ সালে বাংলাদেশ নাগরিক ও রাজনৈতিক অধিকার বিষয়ক রিপোর্টিং-এ সম্পৃক্ত ছিল এবং মানবাধিকার কাউন্সিলের ধর্ম ও বিশ্বাসের স্বাধীনতা বিষয়ক বিশেষ র‍্যাপোর্টিয়ারের বাংলাদেশ সফরের আয়োজন করে। বাংলাদেশ বর্তমানে মানবাধিকার কাউন্সিলের সদস্য এবং দেশটি একটি মানবাধিকার কমিশন গঠন করেছে, যার ফলে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে বাংলাদেশের দায়িত্ব অনেক বেড়েছে। এর মাধ্যমে স্পষ্ট ভাবে বিশ্ব সম্প্রদায়ের সাথে মানবাধিকারকে এগিয়ে নিতে বাংলাদেশের কাজ করার ইচ্ছার প্রকাশ ঘটে।
বিস্তারিত পড়ুন