আন্তর্জাতিক অহিংসা দিবস উপলক্ষে জাতিসংঘ মহাসচিব বান কি-মুন এর বানী: ২ অক্টোবর ২০১৬

gunপ্রতি বছর আন্তর্জাতিক অহিংসা দিবসের এই দিনে আমরা শান্তির লক্ষ্যে আমাদের প্রতিশ্রুতি পুনঃব্যক্ত করি, যার ভিত্তি মহাত্মা গান্ধীর জীবনদর্শন, যিনি ১৪৭ বৎসর পূর্বে এই দিনে জন্মগ্রহণ করেছিলেন।

আমরা জানি যে, অহিংসার সংস্কৃতি অন্যের প্রতি শ্রদ্ধা প্রদর্শনের মাধ্যমে শুরু হয়, যা সেখানেই থেমে থাকে না। শান্তিকে লালন করতে হলে আমাদের অবশ্যই প্রকৃতিকে শ্রদ্ধা জানাতে হবে। আমি আনন্দিত এ বছরের আন্তর্জাতিক অহিংসা দিবসে স্থিতিশীলতা ও পরিবেশের উপর আলোকপাত করা হয়েছে।

গান্ধী তাঁর প্রতিটি কাজে সকল জীবিত বস্তুর প্রতি আমাদের দায়বদ্ধতাকে সন্মান দেখিয়েছেন। তিনি আমাদের স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন যে “ধরিত্রী প্রতিটি লোকের প্রয়োজন মেটাতে যথেষ্ট দিয়েছে, কিন্তু লোভ মেটাতে নয়”। এছাড়া আমরা পৃথিবীর যেরকম পরিবর্তন দেখতে চাই তা করার  চ্যালেঞ্জ গান্ধী আমাদের সামনে রেখেছে।

আজ ঐ প্রতিশ্রুতি বিশেষভাবে প্রতিফলিত হয়েছে। ভারত জলবায়ু পরিবর্তনের প্যারিস চুক্তি অনুসমর্থন দিচ্ছে। পৃথিবী ও এর জনগনের জন্য মহাত্মা গান্ধী এবং তাঁর উত্তরাধিকার উদযাপনে এর থেকে ভাল দিক আর কি হতে পারে।

আমি ভারতকে জলবায়ু নেতৃত্ব ও শক্তিশালী অবস্থা তৈরির জন্য উষ্ণ অভিনন্দন জানাই, যা আমরা বিশ্বের সকল প্রান্তে থেকে অবলোকন করছি, যাতে চুক্তিটি যত দ্রুত সম্ভব এবছরই কার্যকর হয়। চুক্তিটিতে ভারতের অনুসমর্থন  লক্ষ্য অর্জনের পথে বিশ্বকে গুরুত্বপূর্ণ আরও এক ধাপ এগিয়ে নিয়ে যাবে।

আমি বিশ্বের প্রতিটি দেশকে অনুসমর্থনের লক্ষে নিজস্ব প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে এবং অহিংসার মাধ্যমে সকল কাজে অগ্রগতি অর্জনের আহ্বান জানাই। একটি নিরাপদ, স্বাস্থ্যসন্মত ও অধিক শান্তিপূর্ণ বিশ্ব নির্মাণে এটি অত্যাবশ্যকীয়।